কেন আমরা ইউটিউব এ সফল হতে পারি না

স্বাগতম আপনাকে আমার আরও একটি নতুন ব্লগে। আজ আমি আপনাদেরকে শেয়ার করব কেন আমরা ইউটিউব এ সফল হতে পারি না । ইউটিউব বিশ্বের সোসাইল মিডিয়ার দ্বিতীয় নাম্বারে আছে । এখান থেকে আপনি কোন প্রকার ইনভেস্ট ছাড়া ই ইনকাম করতে পারবেন এবং এটা সবাই জানে । কিন্তুু সমস্যা হল আমরা যারা ইউটিউব নিয়ে কাজ করি তাদের মধ্যে অধিকাংশ কন্টেন্ট ক্রিয়েটররাই সফল হতে পারি না কিছু দিন কাজ করে হতাশ হয়ে ছেড়ে দেই ।ইউটিউব এ সফল

এটা সত্য ইউটিউব এ শর্ত পূরন করতে একটা লম্বা সময় এর প্রয়োজন হয় যদিও এটা সবার ক্ষেত্রে হয় না । এবার আসুন জেনে নিই ইউটিউব এ সফল যারা তাদের ইউটিউব এ কাজের ধরন কেমন, কী এমন কাজ করে যে তারা মাস শেষে টাকা এসে পকেট ভর্তি হয়ে যায়। যদি আপনি ইউটিউব এ সফল হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে একজন সফল ইউটিউবার কি কি করে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। তবে আমি আমার এক্সপেরিয়েন্স থেকে আজ অনেক কিছু শেয়ার করতে যাচ্ছি । যা আপনাকে একটু হলেও উন্নতির দিকে নিয়ে যাবে।

ইউটিউব এ সফল হতে হলে করনীয়

নিয়মিত ভিডিও আপলোড

এটা একটা বড় সমস্যা । আপনি খেয়াল করলে দেখবেন যারাইউটিউব এ সফল হয়েছেন তারা প্রতিনিয়ত ভিডিও আপলোড দিয়ে যাচ্ছেন । যদি মিস ও হয় খুব কম। তাই আপনার চ্যানেল কে যদি বড় করতে চান তাহলে অবশ্যই প্রতিদিন একই সময়ে ভিডিও আপলোড করুন।খেয়াল রাখুন আপনার চ্যানেলে কোন সময় সবচেয়ে বেশী ভিউ হয় ঠিক সেই সময়টাতে ভিডিও আপলোড দিন । তাহলে আপনার অডিয়েন্স এর কাছে খুব দ্রুত ভিডিও টি পৌছে যাবে। আর ভিউ ও হবে।আরও পড়ুন :

ইউটিউব ট্যাগ ব্যবহার করে ভিডিও ভাইরাল করার উপায়
অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়
Youtube চ্যানেল খোলার নিয়ম

কীওয়ার্ড রিসার্চ (keyword Research)

আমরা অনেকেই এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেই না। আপনার ভিডিও বানানোর আগে আপনাকে কিওয়ার্ড রিচার্চ করে নিতে হবে । মানুষ আপনার ভিডিও রিলেটেড কোন ধরনের কথা লিখে গুগল বা ইউটিউবে লিখে সার্চ দেয় সেটা খুজে বের করতে হবে এবং সেগুলো নিয়ে আপনার বিডিও তৈরী করতে হবে।এতে আপনার ভিডিও মানুষ খুজে পাবে এবং ভিউ ও বেড়ে যাবে।

ভিডিও কোয়ালিটি

আপনার চ্যানেল এর প্রতিটি ভিডিও কোয়ালিটি ঠিক রাখতে হবে । উদাহরন সরুপ মনে করুন আপনি একটি ভিডিও রেকর্ড করছেন আর আপনার চারপাশে নয়েজ বা শব্দ হচ্ছে । এতে কিন্তু আপনার ভিডিও আপনার অডিয়েন্স দেখে তৃপ্তি পাবে না । তাই এদিক টা আপনার খেয়াল রাখতে হবে।

লক্ষ্য ঠিক করা 

প্রকৃত পক্ষে আমাদের কোন লক্ষ্য ঠিক থাকে না যে আমর আগামী ২ বছর পর আমাদের চ্যানেল টিকে কোথায় নিয়ে যেতে চাই। ২ বছর না হোক অন্তত আপনি ছয় মাস এর একটা লক্ষ্য ঠিক করুন এবং সে অনুযায়ী ভিডিও তৈরী করুন আর আপলোড দিয়ে যান।

ট্রেন্ডিং বিষয়ের প্রতি খেয়াল

এটা অনেক গুরুত্বপূর্ন । আপনাকে ভিডিও বানানোর আগে খেয়াল রাখতে হবে যে আপনি যে ভিডিও বানাচ্ছেন তার ট্রেন্ড কেমন মানে হল এটা নিয়ে এখন মানুষ গুন্জন করছে কি না । সোজা কথা হল ভাইরাল টপিক । বাংলাদেশে খেয়াল করলে দেখবেন একটার পর একটা ঘটনা ঘটেই থাকে ।

যেমন এই মুহূর্তে আমি যখন আর্টিকেল লিখছি ট্রেন্ড চলছে ক্রিকেটার নাসির অন্য জনের বউকে বিয়ে করেছেন । আমি যাস্ট একটা উদাহরন দিয়েছি। এমন অনেক বিষয় ঘাটাঘাটি করলে আপনি পেয়ে যাবেন । এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে যদি আপনি ভিডিও মেক করেন তাহলে  খুব শীগ্রই আপনার চ্যানেলটি উপরে উঠে যাবে। আরও পড়ুন : ইউটিউব থেকে ভিডিও ডাউনলোড করার সেরা ৫টি সফটওয়্যার

সবশেষে বলব আপনার ইচ্ছাশক্তির উপরে আর কিছু নেই । তাই মনোযোগ দিয়ে আপনি টানা ছয়মাস কাজ করে যান। লোকে আপনাকে অনেক কথা ই বলবে কিন্তু কী আসে যায় । আপনি আপনার মত কাজ করে যান। ইউটিউব এ সফল বিষয়টি একদিনে আসে না । পরিশ্রম করতে হয় । ইংরেজীতে একটি কথা আছে রোম ওয়াজ নট বিল্ট ইন এ ডে । রোম নগরী একদিনে ঘরে উঠে না। তাই আপনাকে আপনার লক্ষ্যে পৌছাতে হলে প্রতিনিয়ত কাজ করে যেতে হবে। এই লেখাটা যদি ভাল লাগে তাহরে আপনার ফেইজবুক শেয়ার করুন। যেকোন সমস্যা কমেন্টস করুন। আমি রিপ্লাই দিব। তাছাড়া কোন কিছু না বুঝলে ইউটিউব এ লিখে সার্চ দিন । সাথে সাথে সমাধান পেয়ে যাবেন।

জানুন : 

কপিরাইট ফ্রি মিউজিক ব্যবহার করুন খুব সহজেই

২০২১ সালের সেরা ৭টি প্রফিটেবল ইউটিউব নিশ

অনলাইন থেকে আয় করতে কে না চায় বলেন? সবাই চায় কারোর অধীনে না থেকে অনলাইনে কী করা যায় বা এমন কোন উপায় আছে কি অনলাইন থেকে আয় করার বা ঘরে বসে কীভাবে অনলাইনে আয় করা যায়। আর এমন সব প্রশ্নের উত্তর মনের ভিতর ভিড় করতে থাকে সারাক্ষন ।

অনলাইনে সফল হওয়ার উপায়

আর তাই ইউটিউবে কিছু ভিডিও দেখেই না জেনে না শুনে শরু করে দেই কাজ । এতে কী হয় কিছু দিন কাজ করার পর যখন কোন ভাল রেজাল্ট পাই না তখন এমনি এমনি সব বন্ধ করে দেই । মজার বিষয় হল আমি যা দেখেছি তা হল আমার কয়েকজন বন্ধুর কথা ই যদি বলি তারা কিছু দিন পর পর একটা নতুন নতুন ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করে কাজ শুরু করে দেয় কিন্তু কয়েকমাস যাওয়ার পর আর কাজ করে না বলে ভিউ হয় না , সম্ভব না , ইউটিউব আমার দ্বারা হবে না। আরও অনেক হিজিবিজি। আর আপনি যদি এমন একজন হয়ে থাকেন তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্য।
অনলাইনে সফল হওয়ার জন্য আপনাকে যা যা করতে হবে……….

অনলাইনে সফল হওয়ার উপায় কি

যেকোন জিনিস আমাদের বাঙগালীর একটা খারাপ অভ্যাস হয়ে দাড়িয়েছে আর তা হল কোন কিছু যাচাই বাছাই না করেই কাজ শুরু করে দেয়া। এক্ষেত্রে আপনাকে একটা উদাহরণ দিলে বঝতে আরও সুবিধা হবে। মনে করুন আপনি একটি ইউটিউব থেকে আয় করতে চান । আমি ধরে নিয়েছি যে আপনি একদম নতুন কিছু ই জানেন না।তাহলে কিন্তু আপনাকে কি করা উচিৎ তা হল ইউটিউব কি , ইউটিউব থেকে কীভাবে ইনকাম হয় , ইউটিউব কেন আমাকে টাকা দিবে আরও অনেক কিছু।পড়ুন : অনলাইন থেকে আয় করার সহজ উপায়

এগুলো আপনাকে জানতে হবে। এজন্য ভিডিও থেকে শুরু করে আপনি গুগলে ও অনেক অনেক তথ্য পেয়ে যাবেন । শুধু পরিশ্রম ও সময় দিতে হবে। এবার আপনি একটু রিচার্জ করুন যে আপনি কোন বিষয় নিয়ে কাজ করতে চান , সেই বিষয় গুলো নিয়ে আর কারা কাজ করছে , এই নিশে আপনার প্রফিট কেমন হবে ইত্যাদি । তবে আরও একটা বিষয় তা হল ইউটিউব শরু করার আগেই আপনাকে কমপক্ষে ১০০ টি ভিডিও বানাতে পারবেন এমন একটি পরিকল্পনা থাকতে হবে।

তারপর সময় নিয়ে একটা একটা করে ভিডিও আপলোড করবেন। এখন আমার যদি পরিকল্পনা ই না থাকে যে আমার ইউটিউব চ্যানেলে এই এই ভিডিও থাকবে তাহলে কীভাবে সফলতা আমি আশা করতে পারি। আশা করছি বিষয়টি বুঝতে পারছেন। আর বেশিরভাগ কন্টেন্ট ক্রিয়েটর রা কোন প্রকার কোন পরিক্ল্পনা ছাড়াই ইউটিউব এ কাজ শুরু করে দেন আর তা হয় হতাশার এক মানচিত্র। আমি উদাহরন টা দিয়েছি শুধুমাত্র ইউটিউব দিয়ে। এটা যেকোন কিছুর ক্ষেত্রে হতে পারে। সময় ও পরিশ্রম ছাড়া আপনি অনলাইনে কোন কিছুতে ই সফল হতে পারবেন না। ধন্যবাদ। আপনি চাইলে নিচের আর্টিকেল গুলো পড়ে আসতে পারেন………