চাকরির-ভাইভা

সরকারি চাকরির ভাইভা দেওয়ার আগে এই টিপসগুলো জেনে নিন

সরকারি চাকরির ভাইভা

সরকারি চাকরির ভাইভা এখন তো সোনার হরিণ হয়ে দাড়িয়েছে। ভাইভা অবধি যাওয়া প্রায় চাকরি হওয়ার পথে। আর তাই সরকারি চাকরির ভাইভা টা দেয়ার সিস্টেম টা একটু ভিন্ন। আর তাই পুরো ব্লগ জুড়ে থাকছে সরকারি চাকরির ভাইভা দেওয়ার বেশকিছু টিপস। আশা করছি এগুলো আপনার খুবই উপকারে আসবে। ত চলুন শুরু করা যাক।

চাকরির-ভাইভা
চাকরির-ভাইভা

 

সর্বপ্রথম আগে নিজের সম্পর্কে জানুন

এই সরকারি চাকরির ভাইভা এর প্রথম প্রশ্ন ই হল আপনি নিজের সম্পর্কে কিছু বলুন। সেক্ষেত্রে অনেকেই নার্ভাস হয়ে যায়। আপনি কি করেন, কোথায় থাকেন, এখন কি করছেন, পছন্দ, অপছন্দ, আপনার লক্ষ্য কি ইত্যাদি সম্পর্কে একটু সাজিয়ে গুছিয়ে লিখতে হবে । তবে চেষ্টা করবেন উত্তর  গুলো যেন প্রফেশনাল মানের হয়ে থাকে।

নিজের দেশ সম্পর্কে এ টু জেড জেনে নিন

বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে আপনি বাংলাদেশের সবকিছুর ধারনা আগে রাখতে হবে যেমন: জনসংখ্যা্, আয়তন, অর্থনৌতিক অবস্থা, ইত্যাদি। কারন দেশের কিছু না কিছু আপনাকে জিজ্ঞেস করবেই।

বিখ্যাত সবকিছু জানা

বাংলাদেশ সহ সারা দেশের বিখ্যাত সব জিনিস আপনার জেনে যেতে হবে যেমন, বিখ্যাত বইয়ের নাম, দেশের নাম, কবির নাম, গায়ক এর নাম, বৈজ্ঞানিক নাম, দেশের এমপি মন্ত্রীর নাম ইত্যাদি।

পড়ুন :

সুপার কম্পিউটার কি ? কত প্রকার সুপার কম্পিউটার আছে?

নিজেকে পরিপাটি করে রাখুন

নিজেকে সবসময় স্মার্ট ও পরিপাটি রাখুন। ভাল কাপড় পরিধান করুন । চুল, নখ, গোফ, দাড়ি কেটে পরিপাটি হয়ে যাবেন। সিজন অনুযায়ী পোষাক-পরিচ্ছদ পড়ার চেষ্টা করুন। সবশেষে নিজেকে হাসি খুশি রাখবেন সবসময়। মুখ কখনো গম্ভীর করে রাখবেন না।

সবসময় ইতিবাচক থাকার চেষ্টা করুন

শুধু সরকারি চাকরির ভাইভা না যেকোন চাকরির ভাইভা এর জন্য আপনাকে সবসময় ইতিবাচক বা পজেটিভ থিংকিং থাকতে হবে। ভাইভো বোর্ডে সবসময় কম কথা বলুন আর শান্ত থাকার চেষ্টা করুন।বেশী সময় নিয়ে উত্তর দেয়ার চেষ্ট করবেন না। উত্তর যদি না পারেন না করে দিবেন তবুও কোন ঘুরিয়ে পেচিয়ে উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবেন না। এতে আপনার অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।

চাকরি সম্পর্কে আইডিয়া

আপনি যে ই চাকরির জন্য ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছেন তার সম্পর্কে আপনার পুরো আইডিয়া বা ধারনা রাখতে হবে। তার পজিশন কি, সেলারী কেমন ইত্যাদি। আপনাকে যেকোন সময় ভাইভা বোর্ডে পশ্ন করতে পারে আপনার চাকরি পোস্ট সম্পর্কে। আরও পড়ুন :

কম্পিউটারের জনক কে? কাকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয়?

নম্রভাবে কথা বলার চেষ্টা করুন

যখন কেউ কোন প্রশ্ন করবে ঠিক তখন আপনি সাথে সাথে নম্রভাবে উত্তর দেয়ার চেষ্টা করুন তবে পাল্টা কোন প্রশ্ন করবেন না। এতে আপনার প্রতি তাদের একটা নেগেটিভ ধারণা চলে আসবে। কোন অহংকার বা ভাব নিয়ে কথা বা উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবেন না।

এভাবে আপনি সরকারি চাকরির ভাইভা জন্য প্রস্তুতি নিতে পারেন। তাছাড়া সরকারি চাকরির ভাইভা বিষয়ক আরো অনেক টিপস গুগল করে জেনে নিতে পারেন। এতে আপনার অনেক উপকার হবে। যদি পোষ্টটি ভাল লাগে তাহলে আপনার ফেইসবুক পেইজে বা নিউজফিড এ শেয়ার করুন। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.