ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব চ্যানেল খোলা এর নিয়ম কি? সহজ পদ্ধতিতে ইউটিউব চ্যানেল তৈরী করার উপায়

ইউটিউব চ্যানেল খোলা

এত এত সব ব্লগ পড়ে হয়ত আপনি এই ব্লগে এসে স্থগিত হয়েছেন। আপনি হয়ত ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জানার জন্য খুব আশা নিয়ে ব্লগটি পড়ছেন।মনোযোগ সহকারে পুরো লেখাটি পড়তে থাকুন আশা করছি আপনি ও ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জেনে যাবেন অন্য সবার মত।ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব হল গুগল এর একটি প্রোডাক্ট। নিজের একটি ইউটিউব খোলার জন্য আপনাকে ইউটিউব ওয়েবসাইটে যেতে হবে বা এখানে ক্লিক করুন।ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার নিজের জিমেইল একাউন্ট ইউটিউব এ লগিন করুন।

এবার ইউটিউব এ লগিন করার পর উপরে ডান দিকে শেষে দেখতে পাবেন ছোট একটি আইকন । আপনাকে সেই আইকনে ক্লিক করতে হবে। ক্লিক করার পর সেখানে দেখতে পাবেন ক্রিয়েটর স্টুডিও নামে একটি অপশন। এখানে ক্লিক করুন। সেখানে গিয়ে আপনি বামপাশে আপনার চ্যানেল এর ড্যাশবোড দেখতে পাবেন।

তাছাড়া এখানে চ্যানেল এর সবকিছু পেয়ে যাবেন। তবে আপনাকে অবশ্যই চ্যানেলটি ভ্যারিফাই করে নিতে হবে। কীভাবে ইউটিউব চ্যানেল ভ্যারিফাই করবেন তা জানতে এইখানে ক্লিক করুন। তাছাড়া আপনি এই ভিডিওটি দেখতে পারেন। কিভাবে একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলা যায় তা আরও সহজ হযে যাবে আপনার কাছে।আগেই বলেছি ইউটিউব থেকে আপনাকে টাকা ইনকাম করতে হলে অবশ্যই আপনাকে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইব নিয়ে আসতে হবে। 

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম
ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

এটা হলে আপনাকে যেতে হবে আপনার ইউটিউব একাউন্ট থেকে চ্যানেল আইকন এ তারপর ক্রিয়েটর স্টুডিও তারপর চ্যানেল তারপর মনিটাইজেশন। এবার আপনি  এখানে ৪টি অপশন দেখতে পারবেন।

অপশন এর ২ নং অংশে আপনাকে গুগল এডসেন্স এর জন্য একাউন্ট ক্রিয়েট করতে হবে। মনিটাইজেশনের এপ্লাই করার পর আপনাকে কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। গুগল আপনার চ্যানেলটি পযালোচনা করে দেখবে। তারপর সবকিছু ঠিক ঠাক থাকলে তারা আপনাকে কনগ্রেচুলেশন জানাবে। তারপর থেকে আপনার প্রতিটি ভিডিওতে গুগল বিজ্ঞাপন দিবে।

আরও জানুন : কীভাব ইউটিউবে মনিটাইজেশন পাবেন

আর এর থেকে ইউটিউব কিছু রেখে বাকিটা আপনার এডস্যান্স একাউন্টে পাঠিয়ে দিবে। তবে আপনার এডসেন্স একাউন্টে ১০০ ডলার না হলে আপনি টাকা তুলতে পারবেন না। প্রথম কয়েক মাস আপনার অনেক কষ্ট হবে। তারপর আপনার চ্যানেল যদি গ্রু করে তাহলে মজা খাবেন বসে বসে।

তবে আপনার ভিডিও কোয়ালিটি যদি খুব ভাল হয় তাহলে আপনার উঠতে খুব বেশী সময় লাগবে না। তাই ইউটিউবে আপনার কাজ করতে হলে অবশ্যই খুব ভাল মানের ভিডিও বানাতে হবে।

যেন আপনার  বিডিও আপনার ভিউয়ারস রা পছন্দ করে। বিডিও ভিউ বেশী করার জন্য আপনি যদি চান তাহলে এই ব্লগটি পড়ুন। আশা করি আপনার উপকার হবে। তাছাড়া ইউটিউব মনিটাইজেশন এর জন্য এপ্লাই করতে এই ভিডিও টি ফলো করতে পারেন।


ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যায় [ইউটিউব চ্যানেল খোলা]

এবার আমরা জানব ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যায়। তা জানলে হয়ত আপনার চোখ কপালে উঠে যাবে। সাধারণত ইউটিউবাররা অনেকগুলি ধাপে টাকা আয় করে থাকে যেমন: বিজ্ঞাপন, এ্যাফিলিয়েট, লিংকের মাধ্যমে এবং স্পন্সর এর মাধ্যমে

বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আয়

আপনার ইউটিউব চ্যানেল এ যখন ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইব পূর্ন হয়ে যাবে ঠিক তখন ইউটিউব কোম্পানি আপনার চ্যানেল টি যাচাই বাচাই করে যখন দেখবে সব ঠিক আছে তখন মনিটাইশেন অন হয়ে য়াবে।আর তখন ইউটিউব আপনার চ্যানেল এর প্রতিটা ভিডিও তে এ্যাড সো করাবে। এখান থেকে আপনাকে কিছু রেভিনিউ আপনাকে দিবে। এটাই হল বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আয়।

এভাবে বাংলাদেশে ৪০০০০ টাকা থেকে শুরু করে মাসে ৫০০০০০ পর্যন্ত মানুষ ঘরে বসে ইনকাম করছে এই ইউটিউব চ্যানেল থেকে।অনেকেই আছেন যারা তাদের ইনকাম হাইড করে রেখেছেন তাহলে একবার ভাবুন তারা কি পরিমাণ ইনকাম করছে।

এ্যাফিলিয়েট করে ইনকাম

আপনার একটি চ্যানেল থেকে এ্র্যাফিলিয়েট করে কি পরিমাণ ইনকাম করা সম্ভব তা আপনি কল্পনা করা ও কঠিন হয়ে যাবে। অবশ্য আমাদের দেশে ও অনেক রয়েছে ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে এ্যাফিলিয়েট করে মাসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করছে।তবে বাহিরের দেশ গুলোতে ই বেশী রয়েছে। আপনি একটি রিভিউ ভিডিও মেক করলেন নোকিয়া ২.২ মডেল মোবাইল এর আর ভিডিও এর ডেসক্রিপশন বক্সে আপনার এফিলিয়েট লিংক বসিয়ে দিলেন।

এই ভিডিও টি যত মানুষ দেখবে তার মধ্যে কিছু না কিছু মানুষ ডেসক্রিপশন বক্স চেক করবে এবং সেখান থেকে লিংকে ক্লিক করে যদি কেউ এই মোবাইলটি ক্রয় করে তাহলেই আপনি একটি কমিশন পেয়ে যাবেন। আর এভাবেই আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

স্পন্সর এর মাধ্যমে আয়

আপনার চ্যানেলটি যদি টেক চ্যানেল হয়ে থাকে আর যদি আপনার চ্যানেলে ৩০০০ এর উপরে সাবস্ক্রাইব হয়ে থাকে তাহলে আপনি কোন না কোন কম্পানির একটি প্রডাক্ট এর রিভিউ ভিডিও বানিয়ে আপনার চ্যানেলে আপলোড দিয়ে তার বিনিমযে কোম্পানির কাছ থেকে এককালীন টাকা নিতে পারেন। এটাই হল স্পন্সর এর মাধ্যমে আয়। এভাবে বাংলাদেশের বড় বড় টেক ইউটিউবার গুলো অনেক টাকা ইনকাম করছে। Read More :

কপিরাইট ফ্রি ইমেজ সংগ্রহ করার সেরা ৫টি ওয়েবসাইট

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়-২০২০

ইউটিউব থাম্বনেইল তৈরী করুন খুব সহজেই

আশা করছি ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম নিয়ে আপনাদের আর কোন ধরনের সমস্যা হওয়ার কথা না তারপর ও যদি কোন ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে আপনি আমাকে কমেন্টস করে জানান। আমি সেখানে রিপ্লাই দিব। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.